Designed by shamsuddin noman

Skip to Content

কোম্পানীগঞ্জে ব্যবসায়ী অপহরণ হাত-পা বাঁধা অবস্থায় উদ্ধার

কোম্পানীগঞ্জে ব্যবসায়ী অপহরণ হাত-পা বাঁধা অবস্থায় উদ্ধার

Closed

12201009_1635999056650869_176648665_n
প্রতিবেদক
নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার বসুরহাট বাজারের জিরো পয়েন্ট থেকে রোববার রাত ৯টায় বামনী বাজারের ব্যবসায়ী নুরনবী সবুজকে দুর্বৃত্ত অপহরণ করে নিয়ে যায়। সোমবার সকালে বসুরহাট কবিরহাট সড়কে বাগান বাড়ির পূর্বপাশ্বে হাত-পা ও চোখ মুখ বাঁধা অচেতন অবস্থায় উদ্ধার করে কোম্পানীগঞ্জ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। পারিবারিক সূত্র থেকে জানাযায়, ব্যসায়ী নুর নবী সবুজ রোববার রাত ৮টার পর দোকানের মালামাল ক্রয়ের জন্য ১লাখ ২২ হাজার টাকা নিয়ে বসুরহাট বাজারের উদ্দেশ্যে রওয়ানা হয়। বসুরহাট বাজারের জিরো পয়েন্টে পৌছলে দৃর্বৃত্তরা তাকে জোরপূর্বক একটি সাদা মাক্রোবাসে তুলে অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে যায়। সারা রাত নুর নবী সবুজকে শারীরিক নির্যাতন করে তার কাছে থাকা নগদ টাকা, দামী মুঠোফোন নিয়ে যায়। সোমবার সকালে ব্যবসায়ী নুর নবী সবুজকে (৪২) হাত-পা ও চোখ-মুখ বাঁধা অচেতন অবস্থায় স্বজনেরা বসুরহাট-কবিরহাট রোড়ে বাগান বাড়ি পূর্ব পাশ্বে রোড়ের উত্তর পাশ্ব স্থান থেকে তাকে উদ্ধার করে সরকারী হাসপাতালে ভর্তি করে। ব্যবসায়ী নুর নবী সবুজ রামপুর ইউনিয়নের আবদুল খালেক মেম্বারের ছেলে। এ ঘটনায় ব্যবসায়ী নুর নবী সবুজের ভাই নুর করিম স্বপন বাদী হয়ে সোমবার দুপুরে ৬ জনকে আসামী করে কোম্পানীগঞ্জ থানায় একটি অপহরণ মামলা দায়ের করেছে। মামলার আসামীরা হলেনÑ আবুল খায়ের, পিতা-মৃত আব্দুল কাদের, সাং রামপুর ৩নং ওয়ার্ড, হাবিবুল্লাহ চৌধুরী, পিতা-মৃত আব্দুল মজিদ, সাং রামপুর ২নং ওয়ার্ড, আবুল মোবারক মিয়া, পিতা-মৃত আব্দুল কাদের, সাং রামপুর ৩নং ওয়ার্ড, মাহবুবুর রহমান মাসুদ, পিতা-মৃত আব্দুল হক, সাং রামপুর ৩নং ওয়ার্ড, মিজানুর রহমান বাদশা, পিতা-মৃত মোবারক হোসেন, সাং- রামপুর ৩নং ওয়ার্ড, আনোয়ার হোসেন, পিতা-মৃত ওবায়দুল হক, সাং সিরাজপুর ১নং ওয়ার্ড, অপহৃত নূরনবী সবুজের পরিবারের দাবি হাবিবুল্লাহ চৌধুরী সাথে নূরনবী সবুজের পরিবারদের সামাজিক নেতৃত্ব নিয়ে দীর্ঘদিন যাবত বিরোধ চলছিল। সবুজ সবসময় হাবিবুল্লাহ চৌধুরী বিভিন্ন অসামাজিক কার্যকলাপে প্রতিবাদ করে আসছিল। তাদের দাবি জামাত সমর্থক বিএনপি নেতা হাবিবুল্লাহ চৌধুরী সামাজিকভাবে আধিপত্য বিস্তার করতে না পেরে সুবজকে অপহরণের পথ বেছে নিয়েছে। এদিকে হাবিবুল্লাহ চৌধুরী নোয়াখালী প্রতিদিনকে জানান ঘটনার আমাকে জড়ানো সম্পূর্ণ উদ্দেশ্যপ্রণোদিত। আমি দীর্ঘ কয়েক দশক এলাকার উন্নয়নে ব্যাপক ভূমিকা রেখে আসছি। আমার সমাজসেবামূলক কর্মকাণ্ডে ঈর্ষাণীত হয়ে হয়ে তারা অপপ্রচার চালাচ্ছে। আর এটা একটা পাগলেও বিশ্বাস করবে না আমার আপন ভাইয়ের ছেলে সবুজকে আমি অপহরণ করেছি। এলাকাবাসী মনে করে আমাকে সামাজিকভাবে হেয়প্রতিপন্ন করার জন্য মামলায় জড়ানো হয়েছে।

Previous
Next