Designed by shamsuddin noman

Skip to Content

দ্বিতীয় মেয়াদে রাষ্ট্রপতি হলেন আবদুল হামিদ

দ্বিতীয় মেয়াদে রাষ্ট্রপতি হলেন আবদুল হামিদ

Closed
by February 8, 2018 জাতীয়

স্টাফ রিপোর্টার :: বর্তমান রাষ্ট্রপ্রধান মো. আবদুল হামিদ টানা দ্বিতীয় মেয়াদে রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হয়েছেন। তিনি এখন দেশের ২১তম রাষ্ট্রপতি। বুধবার নির্বাচন ভবনে মো. আবদুল হামিদকে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত ঘোষণা করেন নির্বাচন কর্তা ও প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কেএম নুরুল হুদা।

এরপরই রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হওয়া সংক্রান্ত গেজেট প্রকাশ করা হয়। বুধবার সন্ধ্যায় গণভবনে রাষ্ট্রপতির সঙ্গে দেখা করে ওই গেজেট তার হাতে তুলে দেন সিইসি ও অন্য চার কমিশনার।

এর আগে রাষ্ট্রপতি পদে দাখিল হওয়া মনোনয়নপত্র বুধবার সকালে পরীক্ষা করেন নির্বাচন কর্তা। এ সময় জাতীয় সংসদের চিফ হুইপ আসম ফিরোজসহ আওয়ামী লীগের প্রতিনিধি দলের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন। পরে দুপুর সাড়ে ১২টায় নির্বাচন ভবনের মিডিয়া সেন্টারে সিইসি আনুষ্ঠানিক সংবাদ সম্মেলন করে জানান, প্রথম মনোনয়নপত্র বৈধ হওয়ায় এবং আর কোনো প্রার্থী না থাকায় মো. আবদুল হামিদকে একক প্রার্থী হিসেবে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় রাষ্ট্রপতি ঘোষণা করা হয়।

সিইসি বলেন, ‘রাষ্ট্রপতি পদের মনোনয়নপত্র পরীক্ষার পর মো. আবদুল হামিদ একমাত্র বৈধ প্রার্থী হওয়ায় রাষ্ট্রপতি নির্বাচন আইন ১৯৯১-এর ধারা ৭ মোতাবেক তাকে নির্বাচিত ঘোষণা করছি।’ তিনি বলেন, সম্ভবত আগামী ২৩ এপ্রিল নতুন রাষ্ট্রপতি হিসেবে মো. আবদুল হামিদ শপথ নিতে পারেন।

এক প্রশ্নের জবাবে সিইসি বলেন, রাষ্ট্রপতি পদে মো. আবদুল হামিদের পক্ষে তিনটি মনোনয়নপত্র দাখিল করা হয়েছিল। প্রথমটিতে প্রস্তাবক ওবায়দুল কাদের ও সমর্থক তোফায়েল আহমেদ। দ্বিতীয় মনোনয়নপত্রে প্রস্তাবক রাশেদ খান মেনন ও সমর্থক আসম ফিরোজ। তৃতীয় মনোনয়নপত্রের প্রস্তাবক হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ ও সমর্থক মো. আতিউর রহমান আতিক। প্রথম মনোনয়নপত্র পরীক্ষায় বৈধ হওয়ায় দ্বিতীয় ও তৃতীয়টি পরীক্ষার প্রয়োজন হয়নি।

ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ তারিখ ২৩ ফেব্রুয়ারি। ওই সময়ের আগে প্রজ্ঞাপন জারির বিষয়ে সিইসি বলেন, রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের আইন অনুযায়ী এটি বৈধ প্রক্রিয়া। আইনে বলা আছে, রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের জন্য একক প্রার্থী হলে যাচাই-বাছাই শেষে প্রজ্ঞাপন জারি করা যাবে। যদি একাধিক প্রার্থী পাওয়া যায়, সেক্ষেত্রে মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার বা নির্বাচনের প্রশ্ন আসে।

সংবাদ সম্মেলনে নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার, মো. রফিকুল ইসলাম, কবিতা খানম ও ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) শাহাদত হোসেন চৌধুরী উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাইয়ে উপস্থিত থাকা আওয়ামী লীগের প্রতিনিধি দলের প্রধান ও সংসদের চিফ হুইপ আসম ফিরোজ সাংবাদিকদের ব্রিফিং করে রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের তথ্য জানান। তিনি বলেন, আমরা রাষ্ট্রপতির মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাই পর্যবেক্ষণে এসেছিলাম। প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) ও নির্বাচনী কর্তা কেএম নুরুল হুদা মনোনয়নপত্রটি যাচাই-বাছাই করে ১৯৯১ সালের নির্বাচনী আইন অনুযায়ী একক প্রার্থী হিসেবে মো. আবদুল হামিদকে নির্বাচিত ঘোষণা করেছেন।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন সংসদের হুইপ আতিউর রহমান আতিক, শহীদুজ্জামান সরকার ও ইকবালুর রহিম এবং আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতা এবিএম রিয়াজুল কবীর কাওছার।

Previous
Next