Designed by shamsuddin noman

Skip to Content

বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে বুকে লালন এবং ঘাতকদের বংশধরদের নির্মূল করতে হবে – রেলপথ মন্ত্রী

Closed

মোঃশাহাদাত হোসেন নিশাদ
বঙ্গবন্ধু হচ্ছে আমাদের জন্য আদর্শ । আমাদের মনে রাখতে হবে বঙ্গবন্ধু আমাদের মাঝে নেই কিন্তু আমাদের মাঝে রেখে গেছে তার আদর্শ আমাদের তার সেই আদর্শকে বুকে লালন করে এগিয়ে যেতে হবে । যার হাত ধরে আমরা স্বাধীন সার্বোভোমত্ব দেশ পেয়েছি তাকে আমাদের প্রতিটি কর্মে স্বরণ করতে হবে। রবিবার সকাল ১০ টায় সরকারি তিতুমীর কলেজ কর্র্র্র্র্তৃক আয়োজিত শহিদ বরকত মিলোনায়তনে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেক মুজিবুর রহমানের শততম জন্মবার্ষিকী উদযাপন কালে কথা গুলো বলেন রেলপথ মন্ত্রনালয়ের মাননীয় মন্ত্রী মোঃ নুরুল ইসলাম সুজন।
তিনি আরো বলেন, বঙ্গবন্ধু হতদরিদ্র মানুষের জন্য আন্দলন করেছেন। বঙ্গবন্ধু ক্ষুদা দারিদ্র মুক্ত বাংলাদেশ নির্মানের জন্য শপ্ন দেখেছেন। বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম। তার নেতৃত্বে আমরা স্বাধীনতা পেলেও খন্দকার মুস্তাকের মত কি বেইমানের কারনে তার যে অসমাপ্ত কাজ সমাপ্ত করতে পারেননি তিনি। তাই জননেত্রী শেখ হাসিনার হাত ধরে আমাদের বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নকে বাস্তবে রূপান্তর করতে হবে,সেই অসমাপ্ত কাজ সমাপ্ত করতে হবে। আমাদের মনে রাখতে হবে স্বাধীনতার সময় থেকে যে ঘাতকরা রয়েছে তাদের বংশধররা এখন আমাদের মাঝে বিস্তিত আছে। একাত্তরের ঘাতকরা বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর আমাদের জাতীয় চার নেতাকে হত্যা করেছে। এই জাতিকে মেধাশূণ্য করার জন্য যারা এই নির্মম হত্যা কান্ড গুলো করেছে তাদের বংশধর থেকেই আজকের সোনার বাংলাদেশে সন্ত্রাস,জঙ্গিবাদ সৃষ্টি হচ্ছে। তাই আমাদের একসাথ হয়ে তাদের প্রতিহত করতে হবে এবং বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা তৈরি করতে হবে। পৃথিবীর বুকে বঙ্গবন্ধু আমাদের নাম উচুঁ করিয়েছে এটা ছিল বঙ্গবন্ধুর দর্শন। তাই এই ঘাতকদের বংশধরকে আমাদের প্রতিহত করতে হবে।
অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন , সরকারি তিতুমীর কলেজের উপাধ্যক্ষ ড,মোসাঃ আবেদা সুলতানা,সরকারি তিতুমীর কলেজ শিক্ষক সমিতির ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক প্রফেসর মালেকা আক্তার বানু।
এছাড়াও আরো বক্তব্য রাখেন,ইসলামী ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগীয় প্রধান প্রফেসর দেলোয়ার হোসেন, প্রফেসর ডালিয়া আহমেদ,সরকারি তিতুমীর কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি মোঃ রিপন মিয়া,সাধারন সম্পাদক মাহমুদুল হক জুয়েল মোড়ল।
অনুষ্ঠানে বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে গান পরিবেশন করেন অনুষ্ঠানের আহবায়ক সমাজ বিজ্ঞান বিভাগীয় প্রধান প্রফেসর তারাত সুলতানা।

সরকারি তিতুমীর কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর আশরাফ হোসেন তার বক্তব্যে বলেন, ঐরঃ ঃযব রৎড়হ যিবহ রঃ রং ৎবফ. লোহা যখন গরম হবে তখনই সেটাকে আঘাত কর। বঙ্গবন্ধু বুঝতেন কখন কি করতে হবে। সেজন্য তিনি যখন যেটি প্রয়োজন তখন সেটি করেছেন। তিনি চাইলেই ১৯৪৭ এর পরে স্বাধীনতা ডাক দিতে পারতেন কিন্তু তিনি তা করেন নি। তিনি যখনই বুঝেছেন এখন বাঙ্গালি জাতি যুদ্ধের জন্য প্রস্তুত ঠিক তখনই তিনি স্বাধীনতা ডাক দিয়েছেন,এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম।

Previous
Next