Designed by shamsuddin noman

Skip to Content

বৃহত্তর নোয়াখালীর ব্যতিক্রম দু সমাজসেবক মানিক ও কাজী পাপুল কে আওয়ামীলীগ কাজে লাগাতে পারে দলের যে কোন প্রয়োজনে

বৃহত্তর নোয়াখালীর ব্যতিক্রম দু সমাজসেবক মানিক ও কাজী পাপুল কে আওয়ামীলীগ কাজে লাগাতে পারে দলের যে কোন প্রয়োজনে

Closed

রফিকুল আনোয়ার: যে রাজনীতির সাথে মাটিও মানুষের সম্পৃক্ততা থাকে না, তাকে রাজনীতি বলা হয়না। যদিও আমাদের দেশে অহরহ মিলে এরকম রাজনীতিবিদদের। তাৎক্ষণিক সমাজসেবার ভান করে পায়দা হাসিলে সিদ্ধ রাজনীতিবিদরা দিন দিন অকার্যকর হয়ে উঠছেন স্থানীয় কিংবা জাতীয় রাজনীতিতে। জনগনকে বিক্রি করা যে সব নেতাদের নেশা তারা আজ বিব্রত। যুগ ও সময়ের সাথে তাল মিলিয়ে প্রকৃত সমাজসেবায় খুব কম সংখ্যক লোককেই দেখা যায় আত্মনিয়োগ করতে। তাই এ শ্রেনীর লোকদের তালিকাও ছোট। সারা দেশে হাতেগনা কয়েকজন সমাজসেবকের নাম উল্ল্যেখ করতে গেলে বৃহত্তর নোয়াখালীর দু জনের নাম সর্বাগ্রে চলে আসে। এদের একজন নোয়াখালী জেলা আওয়ামীগের সহ সভাপতি আতাউর রহমান ভূঁইয়া মানিক ও অপরজন কুয়েত বাংলাদেশ কমিউনিটির সভাপতি লক্ষ্মীপুর রায়পুরের সন্তান কাজী শহিদ ইসলাম পাপুল। আতাউর রহমান ভূঁইয়া মানিক কাজ করছেন সেনবাগ সোনাইমুড়ী নির্বাচনি এলাকা নিয়ে আর কাজী শহিদ ইসলাম পাপুল কাজ করছেন লক্ষ¥ীপুরের রায়পুর নির্বাচনি এলাকা নিয়ে। আতাউর রহমান ভূঁইয়া মানিক শত শত অসহায় মেয়ের বিয়ে দিয়ে বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমের বদৌলতে সারা দেশবাসীর দৃষ্টি আকর্ষন করতে সক্ষম হয়েছেন। অপর দিকে গত বছর উত্তর বঙ্গের বন্যায় কোটি কোটি টাকার ত্রান বিতরন করে র্নিভেজাল মানব প্রেমিকের সংজ্ঞায় উত্তির্ণ হতে সক্ষম হয়েছেন কাজী পাপুল। সাধারনের মাঝে সহজে মিশে য্ওায়া এবং অসহায়ের দুঃখে দুজনই তাদের মর্মব্যাথা উপলব্দি করায় তারা আজ সমাজসেবকের দৃষ্টান্তে পরিনত হয়েছে। মানিক এবং পাপুল দুজনই দৃষ্টান্ত স্থাপন করতে পেরেছে তাদের নির্বাচনি এলাকাসহ পুরো দেশে। আর এ জন্যই এ দু মানব প্রেমিক নিজ এলকাতেই বিভিন্নভাবে প্রতিবন্ধকতায় এবং অপপ্রচারের শিকার হচ্ছেন।
সেনবাগ সোনাইমুড়ীতে এক মানিক যেভাবে অতি সাধারনের কাছাকাছি যেতে সক্ষম হয়েছেন তা মেনে নিতে পারছেননা রাজনীতিকে পূঁজি করে যারা ব্যবসা করে সে সব রাজনীতিবিদরা। মানিকের মত একই পর্যায়ে স্থানীয় সুবিদাবাধী রাজনীতিবিদদের অপপ্রচারের শিকার রায়পুরের কাজী পাপুল। কাজী পাপুল এলাকায় অসহায় মেয়ের বিয়ে মানুষের ঘরবাড়ী নির্মান অসহায় মানুষের চিকিৎসা সেবা সামাজিক ও ধর্মী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নির্মান সহ এমন কোন সেক্টর নেই যে, যেখানে কাজ করছেন না। সম্প্রতি লক্ষ্মীপুর জেলা পুলিশের চিকিৎসা সহায়তা একটি এম্বুলেন্স প্রদান করে সরকারের শীর্ষ পর্যায়ে আলোচলায় আসতে সক্ষম হয়েছেন কাজী পাপুল। তিনি রায়পুর পৌরসভাকেও একটি এম্বুলেন্স প্রদান করবেন । এ এম্বুলেন্সটি ক্রয় করা হয়েছে যা বর্তমানে রায়পুরেই আছে এবং আনুষ্ঠানিক হস্তান্তরের অপেক্ষায় রয়েছে। কুয়েতে প্রতিষ্টিত শিল্পপতি ও রাজপরিবারের ঘনিষ্ট কাজী পাপুল প্রবাসের মাটিতে হাজার হাজার বাঙ্গালীর কর্ম সংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি করেছেন। দেশের বেকারত্ব লগবের এই সিংহ পুরুষ বাড়িয়েছেন আমাদের রেমিটেন্স। বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে, জেলা পর্যায়ের আওয়ামীলীগের শীর্ষ কয়েক নেতা দলের বিভিন্ন অনুষ্ঠান কর্মসূচির কথা বলে বিভিন্ন সময়ে কাজী পাপুল থেকে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন। সাম্প্রতিক সময়ে কাজী পাপুল ঐসব নেতাদের অনৈকিত অর্থনৈতিক সহযোগীতা বন্ধ করলে তারা কাজী পাপুলের বিরুদ্ধে অপপ্রচারে নামে।
এ প্রসঙ্গে কাজী পাপুল দৈনিক নোয়াখালী প্রতিদিন কে বলেন, আমার বিরুদ্ধে কে কি বললো তা নিয়ে আমি ভাবিনা। এলাকার মাটি ও মানুষের ভালবাসার টানে আমি বার বার ছুটে আসি তাদের কাছে। আমি আল্লাহ্ কাছে একটি ক্ষমতা চাই , যত দিন বেঁেচ থাকবো তাতদিন যেন সাধারনের মাঝে মিশে থাকতে পারি। দলীয় মনোনয় চান কি না এই প্রশ্নের উত্তরে তিনি দৈনিক নোয়াখালী প্রতিদিন কে বলেন, আমি জনগনের সেবা করতে চাই আর দলের প্রধান বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা আমাকে যে অবস্থান থেকে সমাজ সেবা করার সুযোগ প্রদান করবেন সে অবস্থান থেকে আমি সমাজসেবা করে যাবো। প্রায় একই সুরে সাধারন জনগনের মাঝে মিশে থাকার আগ্রহ পুনরায় ব্যক্ত করেছেন সেনবাগ সোনাইমুড়ীর গনমানুষের নেতা আতাউর রহমান ভূঁইয়া মানিক। সেনবাগ আওয়ামীলীগ যখন কতিপয় আওয়ামীলীগ নেতার পকটস্থ হয়ে সংকুচিত হয়ে আসছিলো ঠিক তখনি আতাউর রহমান ভূঁইয়া মানিক এই আওয়ামীলীগ কে তাদের পকেট থেকে বের করে রাজপথে নিয়ে আসেন। বিগত যে কোন সময়ের চেয়ে সেনবাগের আওয়ামীলীগ আতাউর রহমান মানিকের নিদ্দের্শনায় সু সংগঠিত। আজ সেনবাগ সোনাইমুড়ী পরিনত হয়েছে আওয়ামীলীগের ঘাটিতে। বৃহত্তর নোয়াখালীর রায়পুর এবং সেনবাগ সোনাইমুড়ীতে কাজী পাপুল ও আতাউর রহমান ভূঁইয়া মানিক সমাজসেবার এবং সাধারন মানুষের পাশে দাড়ানোর যে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন তা মডেল হতে পারে সারা দেশের আওয়ামীলীগ নেতাদের জন্য। আওয়ামীলীগ আতাউর রহমান ভূঁইয়া ও কাজী পাপুলকে কাজে লাগাতে পারেন দলের যে কোন প্রয়োজনে, এতে লাভবান হবে দল উপকৃত সাধারন জনতা।

Previous
Next