Designed by shamsuddin noman

Skip to Content

মোস্তাফিজুর রহমান দেশ জাতির অহংকার শিরিন আক্তার এমপি

মোস্তাফিজুর রহমান দেশ জাতির অহংকার শিরিন আক্তার এমপি

Closed

প্রতিবেদক : মহান স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধে বাংলাদেশ লিবারেশন ফোর্স তথা বি,এল,এফ এর বৃহত্তর নোয়াখালী জেলার রাজনৈতিক সমন্বয়ক নোয়াখালী ২ (সাবেক) নির্বাচনী এলাকার দুইবার নির্বাচিত জাতীয় সংসদ সদস্য জাসদ নেতা প্রয়াত মোস্তাফিজুর রহমানের প্রথম মৃত্যু বার্ষিকী উপলক্ষ্যে সম্মিলিত নাগরিক কমিটির আয়োজনে ৯ নভেম্বর বিকেল ৩টায় চৌমুহনী গণ মিলনায়তনে এক নাগরিক স্মরণ সভা অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত সভায় প্রধান বক্তার বক্তব্যে ফেনীর ছাগল নাইয়া আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য জাসদ নেত্রী শিরিন আক্তার বলেন, স্বাধীন অসাম্প্রদায়িক গণতান্ত্রীক-সমাজতান্ত্রীক বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠাই ছিল প্রয়াত মোস্তাফিজুর রহমানের স্বপ্ন। আয়োজক কমিটির আহ্বায়ক মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক ও বীর মুক্তিযোদ্ধা গোলাম মোস্তফা ভূঞার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত স্মরণ সভায় স্মৃতি চারণমূলক আরো বক্তব্য রাখেন। নুরুল হক চৌধুরী কমরেড মেহেদি জাতীয় নেতা ও প্রবক্তা গরিবী হটাও আন্দোলন, ডাঃ এ.বি.এম জাফর উল্যাহ জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান, অধ্যাপক আব্দুল মোমিন সাবেক বিভাগীয় প্রধান বাংলা বিভাগ চৌমুহনী এস এ কলেজ, ডঃ গাজী সালাউদ্দিন সাবেক ডিন সমাজ বিজ্ঞান অনুষদ চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়, মোঃ আব্দুর রব সাবেক অতিরিক্ত সচিব পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়, কাজী মোঃ রফিক উল্যাহ সাবেক অধ্যক্ষ নোয়াখালী সরকারী কলেজ, আক্তার হোসেন ফয়সল মেয়র চৌমুহনী পৌরসভা, আবুল হোসেন বাঙালি উপজেলা কমান্Noakhali JASOD MP SERIN Photo By Reyad 09 Nov-1ডার মুক্তিযোদ্ধা সংসদ বেগমগঞ্জ, আ.ন.ম জাহের উদ্দিন বিশিষ্ট সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব, স্মরণ সভায় উপস্থিত প্রধান বক্তার বক্তব্যে শিরিন আক্তার বলেন প্রয়াত এমপি ও জাসদ নেতা মোস্তাফিজুর রহমান এদেশ জাতি এবং জাতীয় সমাজতান্ত্রীক দল জাসদের অহংকার তাঁকে নিয়ে যেমন আমরা গর্ব করতে পারি তেমনি তাঁর জীবনাদর্শকে চলার পথের পাথেয় হিসেবে গ্রহণ করে আগামী দিনে সমাজ বদলের রাজনীতিকে এগিয়ে নিয়ে যেতে পারি। তিনি আরো বলেন সমাজ বদলের রাজনীতি তথা স্বাধীন সমাজতান্ত্রীক বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠায় মোস্তাফিজুর রহমানদের চিন্তা ছিল সূদূর প্রসারী। যাহা মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনা হিসেবে খ্যাত এবং ১৯৬২ সালে প্রথম স্বাধীন বাংলা বিপ্লবী পরিষদ তথা নিউক্লিয়াস সৃষ্টির মধ্য দিয়ে বাঙালী জাতির জন্য একটি স্বাধীন গণতান্ত্রীক সমাজতান্ত্রীক দেশ হিসেবে জাতি রাষ্ট্র বাংলাদেশ সৃষ্টি ছিল মুক্তি যুদ্ধের চেতনার মূল মন্ত্র। এই চেতনাকে ধারণ করেই স্বাধীনতার প্রশ্নে মহান মুক্তিযুদ্ধে ত্রিশ লক্ষ শহীদের আত্মদান ঘটে। এক সময়ে বাংলাদেশ ছাত্র লীগ কেন্দ্রীয় সংসদের সভানেত্রী বর্তমানে নারী আধিকার প্রতিষ্ঠার নেত্রী ও জাসদ নেত্রী শিরিন আক্তার আরো বলেন, স্বাধীন দেশে মুক্তিযুদ্ধে শহীদদের স্বপ্ন তথা মুক্তিযুদ্ধের চেতনার পরিপূর্ণ রূপায়নে ১৯৭২ সালের ৩১ শে অক্টোবর জাতীয় সমাজতান্ত্রীক দলের আত্ম প্রকাশ ঘটে। স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনার পরিপূর্ণ বাস্তবায়নের সংগ্রাম আজো চলছে এবং এই লড়াই সংগ্রামের এই পর্যায়ে জাসদ সমমনা সহায়ক শক্তির সমন্বয়ে একাত্তরে পরাজিত বাহিনী রাজাকার মুক্ত সুখী সমৃদ্ধশালী বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠায় অঙ্গিকারবদ্ধ। রাজাকার মুক্ত বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার পাশাপাশি দেশকে একটি মধ্য আয়ের অসাম্প্রদায়িক গণতান্ত্রীক প্রগতিশীলতায় শান্তি সমৃদ্ধির পথে এগিয়ে নেওয়ার লক্ষ্যে বর্তমান সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার আপোষহীন নেতৃত্বে তাঁর নেতা জাসদ সভাপতি হাসানুল হক ইনু তথ্য মন্ত্রণালয়ের মাননীয় মন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। এমপি শিরিন আক্তার সকল জাসদ নেতাকর্মীদেরকে কচুপাতার পানির মত টলমলে অবস্থায় না থেকে জাসদ রাজনীতির মূলে তথা অসম্প্রদায়িক গণতান্ত্রীক সমাজতান্ত্রীক ধারায় একথায় মুক্তি যুদ্ধের চেতনায় ফিরে আসার অনুরোধ জানান। যাহা জাসদ প্রতিষ্ঠা কালীন নেতা হিসেবে এই জেলায় মুক্তিযুদ্ধের মহান সংগঠক হিসেবে প্রয়াত মোস্তাফিজুর রহমান স্বপ্ন দেখেছিলেন বলে তিনি জানান। বিশেষ বক্তার বক্তব্যে গরীবী হটাও আন্দোলনের প্রবক্তা জাতীয় নেতা নুরুল হক চৌধুরী কমরেড মেহেদী বলেন, ন্যায় নীতি সততা ও ত্যাগের অনন্য নিদর্শন মোস্তাফিজুর রহমান একটি সমাজতান্ত্রীক সমাজ থেকে পর্যায়ক্রমে একটি সাম্যনীতির সমাজ ব্যবস্থার স্বপ্ন দেখেছিলেন। যাহার ধারাবাহিকতায় আজকের বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা হলেও সত্যিকার ন্যায় নীতি মানবিক মূল্যবোধ সম্পন্ন সামাজিক সাম্য ন্যায় বিচার ও শান্তি প্রতিষ্ঠায় আমরা বেশী দূর অগ্রসর হতে পারিনি। স্বাধীন দেশে প্রধান বাধা হিসেবে ক্ষমতার আত্ম কলহ এবং লোভ হিংসা ও ভোগ বিলাসের রাজনীতি আমাদের জাতীয় চেতনা ও জাতীয় ঐক্য বিনষ্ট করে দেয়। স্বাধীন দেশে ভোগ বিলাস ও ক্ষমতার মোহ গ্রস্ততায় হত্যা ক্যুয়ের মত ঘটনার মধ্য দিয়ে ইতি পূর্বে স্বাধীণতার বিগত বছর অতিবাহিত হয়েছে। কিন্তু দুর্ভাগ্য হলেও সত্য সারাদেশে দুর্নীতি অপরাজনীতি ভোগ বিলাসের ছড়াছড়িতে স্বাধীনতার মূল লক্ষ্য আজও প্রতিষ্ঠা পায়নি। যাহা মোস্তাফিজুর রহমানরা স্বপ্ন দেখে ছিলেন। তিনি বর্তমান সরকারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ দিয়ে বলেন, যুদ্ধ অপরাদের বিচার কার্যের সাথে স্বাধীন দেশে সকল রাজনৈতিক হত্যাকান্ডের বিচার এর পাশা পাশি ভূমি দস্যু লুন্ঠনকারী দুর্নীতি বাজদের ও বিচার করতে হবে। তিনি বিশেষ করে কর্ণেল তাহের সহ সকল নিরপরাধ দেশ প্রেমিক ত্যাগী বীর মুক্তিযোদ্ধাদের হত্যার বিচার দাবী করেন এবং তবেই মোস্তাফিজুর রহমানের মত ন্যায় পরায়ন সতাদর্শের ব্যক্তি ও চিন্তার মূল্যায়ন হবে বলে তিনি বক্তব্যে বলেন। এছাড়াও অন্যান্য বক্তাগন তাঁদের বক্তব্যে ব্যক্তিগত জীবনে একজন সতাদর্শীক ন্যায় পরায়ন স্পষ্ট বাদী নির্লোভ নির্মোহের অধিকারী ত্যাগের অনন্য নিদর্শন অহিংস মনোভাবের দেশ প্রেমিক জাতীয়তাবোধে আচ্ছন্ন প্রগতিশীল গণতান্ত্রীক সমাজতান্ত্রীক চেতনায় উজ্জীবিত প্রাণ মোস্তাফিজুর রহমানের নৈতিক চারিত্রিক জীবনাদর্শের গুণাবলী তুলে ধরে বলেন, এক সময় ক্ষমতার অপব্যবহার করে অথবা অসাধু পথে পা বাড়িয়ে রাতারাতি বাড়ি গাড়ি করার সুযোগ থাকলেও সে পথে একটুও অগ্রসর হননি তিনি। এর বিপরীতে দেশ জাতীর হিতার্থে সার্বক্ষনিক মনোযোগী ছিলেন তিনি। কিভাবে স্বাধীন দেশের জনগণের দ্বার প্রান্তে স্বাধীনতার সুফল পৌঁছে দেওয়া যায় এটাই ছিলো স্বপ্ন। উল্লেখ্য পারিবারিক জীবনে এক ছেলে এক মেয়ের জনক এমপি মোস্তাফিজুর রহমান ২০১৩ সালের ৩ নভেম্বর দীর্ঘদিন দূরারোগ্য ক্যান্সার রোগভোগার পর ইহধাম ত্যাগ করে পরধামে পাড়ি জমান। গত বছরের ৯ নভেম্বর তাঁর শোক সভা বজরা উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে অনুষ্ঠিত হয়। আজকে তাঁর প্রথম মৃত্যু বার্ষিকী উপলক্ষ্যে এটি প্রথম স্মরণ সভা অনুষ্ঠিত হল। অনুষ্ঠানে উল্লেখ যোগ্যভাবে উপস্থিত ছিলেন আয়োজক কমিটির যুগ্ন আহ্বায়ক কমিশনার আব্দুল মান্নান, অধ্যক্ষ আবুল কালাম আজাদ, সাংবাদিক গোলাম মহি উদ্দিন নসু, জেলা জাসদ সভাপতি নূর আলম চৌধুরী পারভেজ, জেলা জাসদ সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট আজিজুল হক বকসি, মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক হিমাংসু ভুষণ বনিক, ফেনীর জাসদ নেতা ও বীর মুক্তিযুদ্ধা লক্ষণ বনিক, জেএসডি নেতা মাষ্টার আবুল কাশেম পাটোয়ারী, সামাজিক শক্তি জেলা নেতা সাংবাদিক ফারুক আল ফয়সাল, ভি পি হাবিবুর রহমান বাবুল, অধ্যাপক হারুনুর রশিদ, বাসদ নেতা দলিলুর রহমান দুলাল, চেয়ারম্যান আমিনুর রসুল দুলাল, চেয়ারম্যান রফিক উল্যা, চেয়ারম্যান আলাউদ্দিন, জেএসডি নেতা মফিজুর রহমান, চৌমুহনী পৌর আহ্বায়ক মাইন উদ্দিন মানিক, সাংবাদিক গোলাম মর্তূজা প্রমূখ। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন বীরমুক্তিযোদ্ধা ও সাবেক জাসদ নেতা মাহবুবুর রহমান বাবুল।

Previous
Next