Designed by shamsuddin noman

Skip to Content

রাতের ঘুম কেড়ে নিচ্ছে স্মার্টফোন

রাতের ঘুম কেড়ে নিচ্ছে স্মার্টফোন

Closed
ডে ক্স রিপোর্ট ; রাতে ঘুমানোর আগে সাধের স্মার্টফোনটি নিয়ে একটুখানি নড়াচড়া না করলে ঘুম আসে না। ঘুমানোর আগে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকের হোমপেজ অন্তত একবার না দেখলে মনটাই অতৃপ্তি থেকে যায়। এ লক্ষণ থাকতে পারে আপনার মধ্যেও। তাহলে এখন থেকেই ফিরে আসার পথ অনুসরণ করুন। সাম্প্রতিক একটি জরিপে দেখা গেছে, স্মার্টফোনের আসক্তি বহু সচেতন মানুষেরই রাতের ঘুম কেড়ে নিচ্ছে।

ক্যালিফোর্নিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের বর্ষীয়ান অধ্যাপক ডাক্তার গ্রেগরি এম মার্কাস ৬৫৩ জন প্রাপ্তবয়স্কের উপর এই জরিপ চালান৷ রাতে ঘুমোতে যাওয়ার সময় ঠিক কতক্ষণ মোবাইল হাতে রাখেন এক একজন ‘ইউজার’, এই সমীক্ষায় সেটা হিসাব করে দেখা হয়৷ সঠিক তথ্য জানতে কারও মুখের কথায় ভরসা না করে, প্রত্যেক ইউজারের স্মার্টফোনে একটি অ্যাপ ‘রান’ করানো হয় যেটি স্ক্রিনটাইমের নিখুঁত হিসাব রাখত৷

জরিপে দেখা যায়, প্রতি রাতে অন্তত এক থেকে দেড় ঘন্টা করে ফোনের স্ক্রিনের দিকে তাকিয়ে থাকেন স্মার্টফোনে আসক্তরা৷ ৩০ দিনের হিসাবে তাদের প্রায় ৪০-৫০ ঘন্টা সময় কাটে ফোনের পিছনে, তাও শুধু রাতে৷ বয়স যাদের কম, তারাই বেশি সময় কাটান৷ জরিপের আরও উঠে এসেছে , যে ইউজার যত বেশি ফোনের পিছনে সময় কাটান, তার ঘুমের ঘনত্ব ততই কমতে থাকে৷ হিসাব কষে দেখা গিয়েছে, টিনএজারদের রাতে ঘুম হয় খুব পাতলা৷ তাদের ঘুম গাঢ় হয় ভোরের দিকে৷ এই প্রবণতাকে ‘বিপজ্জনক’ বলছেন অধ্যাপক গ্রেগরি৷

গ্রেগরি বলেন, টিভি এখন আর ঘুমের ক্ষতি ততটা করে না৷ কারণ, মানুষ এখন টিভি ছেড়ে স্মার্টফোনকে সময় কাটানোর প্রধান মাধ্যম হিসাবে বেছে নিয়েছেন৷ স্মার্টফোনের স্ক্রিন থেকে বিচ্ছুরিত আলো ঘুমের ক্ষতির জন্য যথেষ্ট বলে জানিয়েছেন তিনি৷ স্মার্টফোনের স্ক্রিন একা নয় অবশ্য, ইউজারদের ঘুমোতে দেয় না সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইটে স্ট্যাটাস বা ছবি পোস্ট করার আকাঙ্ক্ষাও৷ অন্য কেউ আমার আগে পোস্ট করে ফেলবে, এই আতঙ্ক তাড়া করে বেড়ায় স্মার্টফোনে আসক্তদের৷ বরং, অধ্যাপক গ্রেগরি বলছেন, গরিব মানুষ- যাদের হাতে স্মার্টফোন নেই, তারা অনেক বেশি শান্তিতে ঘুমান৷ স্বাস্থ্যজনিত সমস্যা না থাকলে তাদের না ঘুমোনোর বিশেষ কোনও কারণ থাকে না বলে জানিয়েছেন গ্রেগরি৷

Previous
Next