Designed by shamsuddin noman

Skip to Content

৮.৫ মাত্রার ভূমিকম্পের মুখে হিমালয়, মহাপ্রলয়ের আশঙ্কা

৮.৫ মাত্রার ভূমিকম্পের মুখে হিমালয়, মহাপ্রলয়ের আশঙ্কা

Closed

মহাপ্রলয়ের সামনে দাঁড়িয়ে আছে হিমালয় পর্বতমালা। ভারতের ভূমিকম্প বিশারদদের মতে, ৮.৫ মাত্রা ভূমিকম্পে তোলপাড় হতে চলেছে এই পর্বতমালা। তাদের দাবির সাথে একমত হয়েছে মার্কিন বিশেষজ্ঞরাও।

ভারতের বেঙ্গালুরুর ‘জওহরলাল নেহরু সেন্টার ফর অ্যাডভান্সড সায়েন্টিফিক রিসার্চ’ এর ভূকম্পবিদ সি পি রাজেন্দ্রনের নেতৃত্বে চালানো এক গবেষণায় এমনই পূর্বাভাস দেয়া হয়েছে।

সম্প্রতি ‘জিওলজিকাল জার্নাল’ পত্রিকায় প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, দীর্ঘদিন ধরে হিমালয়ের তলার প্লেটে চাপ বাড়ছে। প্লেটের একটি অংশ, আরেকটি অংশের ওপর কয়েকশ বছর ধরে চাপ বাড়িয়েই চলেছে। মাটির তলার প্লেট সেই চাপ সহ্য না করার জায়গায় পৌঁছেছে। অন্তত একটি ৮.৫ রিখটার স্কেলের ভূমিকম্প এখন শুধু সময়ের অপেক্ষা।

নেপালের মোহনখোলা এবং ভারতের চোরগলিয়া অঞ্চলে দীর্ঘদিন ধরে গবেষণা চালানো হয়েছে। স্থানীয় স্তরে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করার পাশাপাশি ভারতীয় মহাকাশ গবেষণা সংস্থা ইসরো এবং গুগল আর্থের বিভিন্ন ছবির মাধ্যমে এলাকার ভূপ্রকৃতির পরিবর্তন লক্ষ্য করেছেন বিজ্ঞানীরা। এরপরই এই সিদ্ধান্তে পৌঁছেছেন ভারতীয় ভূতত্ত্ববিদদের এই দলটি।

গবেষক রাজেন্দ্রনের দাবি, মাটির তলার চাপ যে জায়গায় পৌঁছেছে, সেখানে একটি অংশ, অন্য অংশের থেকে প্রায় ১৫ মিটার সরে যেতে পারে। মাটির তলার এই ১৫ মিটার সরনের প্রভাব বহুগুণে বেড়ে পৌঁছবে ওপরে। যার ভয়াবহতা বিচার করার জায়গায় এই মুহূর্তে নেই বিজ্ঞানীরা।

জার্নালে প্রকাশিত প্রবন্ধে সি পি রাজেন্দ্রন দাবি করেন, এই মাত্রার ভূমিকম্পে হলে ভয়াবহ বিপর্যয়ের মুখোমুখি হবে উত্তর ভারত। এই কম্পনের পরিণতি হবে মারাত্মক। এই প্রলয় সামাল দেয়ার কোনো প্রস্তুতি এই মুহূর্তে ভারতের হাতে নেই। গত কয়েক বছর ধরেই হিমালয়ের বিভিন্ন অংশে আমরা ছোট ছোট কম্পন আমরা লক্ষ্য করছি, যা আসলে বড় মাত্রায় কেঁপে ওঠার লক্ষণ।

এদিকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কলোরাডো বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষক রজার বিলহ্যাম দীর্ঘদিন ধরে হিমালয়ে ভূকম্পনের মাত্রা নিয়ে গবেষণা করে চলেছেন। তার কথায়, ভারতীয় বিজ্ঞানীরা যে সতর্কবার্তা দিয়েছেন, তা একদম সঠিক। রিখটার স্কেলে ৮.৫ তীব্রতা ভূমিকম্প হিমালয়ে আছড়ে পড়ার সময় আসন্ন।

Previous
Next