Designed by shamsuddin noman

Skip to Content

‌`আমার ফাঁসি হোক, খাদিজার জয় হোক’

‌`আমার ফাঁসি হোক, খাদিজার জয় হোক’

Closed

সিলেটের কলেজছাত্রী নার্গিস আক্তার খাদিজা হত্যা চেষ্টা মামলার আসামী বদরুল আলম বলেছেন, ‘আমি অপরাধ করেছি। আমি দোষী। আমার ফাঁসি হোক। খাদিজার জয় হোক।’রোববার বেলা ১১টার দিকে সিলেটের মহানগর মুখ্য বিচারিক হাকিম আদালতে খাদিজা হত্যাচেষ্টা মামলায় বদরুলকে আদালতে উপস্থিত করা হলে সাংবাদিকদের উদ্দেশে তিনি চিৎকার করে এসব কথা বলেন।এ দিন চাঞ্চল্যকর এ মামলার দ্বিতীয় পর্যায়ের সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু হয়েছে। রোববার বেলা ১১টা থেকে ২টা ৩৫ মিনিট পর্যন্ত সিলেট মুখ্য মহানগর হাকিম সাইফুজ্জামান হিরোর আদালতে তারা সাক্ষ্য প্রদান করেন।আদালতের এপিপি মাহফুজুর রহমান জানান, খাদিজা হত্যাচেষ্টা মামলায় বদরুল আলমের বিরুদ্ধে রোববার ১৫ জন সাক্ষী সাক্ষ্য প্রদান করেছেন। উল্লেখযোগ্য সাক্ষীরা হচ্ছেন- খাদিজার বাবা মাসুক মিয়া, মা মনোয়ারা বেগম, বদরুলের জবানবন্দি গ্রহণকারী বিচারক উম্মে সরাবন তহুরা, ওসমানী হাসপাতালের ডাক্তার আতাউল গণি, মামলার তদন্ত কর্মকর্তা হারুনুর রশীদ, প্রত্যক্ষদর্শী তামান্না প্রমুখ।তিনি জানান, আদালত পরবর্তী সাক্ষ্যগ্রহণের জন্য ১৫ ডিসেম্বর তারিখ ধার্য্য করেছেন। সেদিন স্কয়ার হাসপাতালে খাদিজার চিকিৎসার দায়িত্বে থাকা চিকিৎসক এবং খাদিজাকে আদালতে হাজির করার নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।এর আগে গত ৫ ডিসেম্বর সাক্ষ্যগ্রহণের প্রথম দিন বদরুলের বিরুদ্ধে আদালতে ১৭ জন সাক্ষ্য প্রদান করেন। আজ আরো ১৫ জন মিলিয়ে এ নিয়ে এ মামলায় ৩২ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ করা হল। মামলায় মোট ৩৭ জন সাক্ষী রয়েছেন।গত ৩ সেপ্টেম্বর সোমবার সিলেটের এমসি কলেজ ক্যাম্পাসে চাপাতি দিয়ে কুপিয়ে খাদিজাকে গুরুতর আহত করে শাবি ছাত্রলীগের সহসম্পাদক বদরুল আলম। প্রেম প্রত্যাখ্যান করায় তার ওপর এ হামলা চালায় বদরুল। হামলার পর পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে তাকে আটক করে গণপিটুনি দিয়ে পুলিশে সোপর্দ করে স্থানীয় জনতা।ঘটনার পরদিন খাদিজার চাচা আব্দুল কুদ্দুস খাদিজাকে হত্যা প্রচেষ্টার অভিযোগ এনে শাহপরান থানায় মামলা করেন। মামলায় একমাত্র আসামি করা হয় ছাত্রলীগ নেতা বদরুলকে। তার বিরুদ্ধে দণ্ডবিধির ৩২৪, ৩২৬ ও ৩০৭ ধারায় অভিযোগ আনা হয়েছে।

Previous
Next