ফেনী

সোনাগাজীতে স্কুল ছাত্রীর বাল্য বিবাহ ঠেকালেন শিক্ষক

সোনাগাজী উপজেলার মতিগঞ্জ ইউপির আর. এম.হাট কে উচ্চ বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রণেীর ছাত্রীর বাল্য বিবাহ ঠেকালেন বদ্যিালয়রে প্রধান শিক্ষক মজিানুর রহমান।
জানা গেছে, ওই বিদ্যালয়ের মেধাবী ছাত্রী ফারিয়া আক্তার গত কিছু দিন ধরে শ্রণেী কক্ষে লেখাপড়ায় অমনোযোগী ও নিরব হয়ে যায়। তাকে বিষন্ন দেখে বৃহস্পতবিার সহপাঠিরা প্রশ্ন করলে ফারিয়া জানায় তার ইচ্ছার বিরুদ্ধে বাবা মা বিয়ে ঠিক করে পেলেছে, সে পড়াশোনা করতে চাই,এ বিয়েতে সে রাজি নয়। এসব জানার পর সহপাঠিরা তাকে প্রধান শিক্ষক মিজানুর রহমানের কাছে নিয়ে যান। ওই সময় ফারিয়া পড়ালেখা চালিয়ে যাওয়ার আকুতি জানিয়ে প্রধান শিক্ষককে বিয়ে ঠেকানোর অনুরোধ জানান।
প্রধান শিক্ষক মিজানুর রহমান জানান, ছাত্রীর আকুতি শুনে তিনি তার বাবাকে ফোন করে বিদ্যালয়ে আসতে বলেন। তার বাবা মা বিদ্যালয়ে এসে ইউনিয়ন পরিষদ থেকে ফারিয়ার বয়স বাড়ানো জন্ম নিবন্ধন সনদ দেখিয়ে বিয়ে দেওয়ার পক্ষে অনঢ় থাকেন। এসময় বিদ্যালয়ের রেজিষ্টার অনুযায়ী ফারিয়ার বয়স ২৫ অক্টোবর ২০০২ সাল দেখিয়ে তাদের দীর্ঘ সময় কাউন্সিলিং করেন। একর্পযায়ে প্রধান শিক্ষক ফারিয়ার বাবা মাকে বুঝাতে সক্ষম হন। পরে তারা ফারিয়াকে বাল্য বিবাহ না দেওয়ার অঙ্গিকার করেন।
বাল্যবিয়ে বন্ধের বিষয়টি উপজেলা র্নিবাহী অফিসার সোহেল পারভেজ কে মোবাইল ফোনে অবহিত করলে তিনি প্রধান শিক্ষককে ধন্যবাদ জানান এবং ছাত্রীর সুরক্ষা ও পড়াশোনা চালিয়ে যাওয়ার বিষয়ে সহযেগিতা করার আশ্বাস দেন।
প্রসঙ্গত গত ৩ সেপ্টেম্বর মঙ্গলবার ছাত্রীর পিতা জাহেদ আলম একই উপজেলার স্বরাজপুর গ্রামের প্রবাসী ছেলের সাথে আকদ সম্পন্ন করে বিয়ের দিন তারিখ ঠিক করেন এবং ফারিয়াকে আর বিদ্যালয়ে যেতে হবেনা বলেও জানিয়ে দেন।
মো.শরয়িত উল্যাহ রফিাত,তাং-০৫/০৯/১৯ ইং, মোবাইল-০১৮৬১০৯১৯১৪

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close