আন্তর্জাতিক

দিদিকে বলতে সাহায্য করায় পশ্চিমবঙ্গের সাংবাদিককে পিটিয়ে পুলিশের হাতে তুলে দেওয়ার অভিযোগ

ডেস্ক রিপোর্ট,
এক প্রতিবন্ধি তরুনীকে বাঁচানোর জন্য দিদিকে বলতে ফোন করার পরামর্শ দিয়ে তৃণমুল নেতার তোপের মুখে পড়লেন বারাসাতের আদর্শ তিতুমীর পত্রিকার মুখ্য সাংবাদিক বৃতি সুন্দর রায়। ঐ নেতার তোপের মুখে পুলিশ সাংবাদিককে গ্রেফতার করে জেল হাজতে পাঠিয়েছে।
আদর্শ তিতুমীর পত্রিকার সম্পাদক ধৃতরাষ্ট্র দত্ত নোয়াখালী প্রতিদিনকে জানান, প্রতিবন্ধি তরুনী পিয়া দাসের বাবাকে এক চিলতে মাছের দোকান থেকে পুলিশের সহযোগিতায় কিভাবে তার মামা রতন দাস উচ্ছেদ করেছিল তার বিশদ বিবরন সাংবাদিক বৃতি সুন্দর রায়ের টেলিফোন থেকে প্রতিবন্ধি তরুনীটি ফোন করে সব ঘটনা জানায়। ফোন করার কয়েকদিন পরেই পিয়া দাসের মামা রতন দাস দোকানের সমস্যা মেটানোর কথা বলে বাড়িতে ডেকে নিয়ে যায় দিদি অঞ্জনা দাস ও ভাগনী পিয়া দাসকে। পরে রতন দাস ঘোলা থানার ওসি বিশ্ববন্ধু চট্টরাজকে বাড়িতে ডেকে এনে দিদি অঞ্জনা দাস ও ভাগনী পিয়াকে পুলিশের হাতে তুলে দেয়। ধৃতরাষ্ট্র দত্ত এ প্রসঙ্গে আরো জানান, থানার সাব-ইন্সপেক্টর সিদ্ধার্থ মিশ্র অঞ্জনা দাস ও পিয়াকে বেধড়ক মারধর করেন এবং ফোন কেড়ে নেয়। মা, মেয়ের বিরুদ্ধে পুলিশ ভারতীয় দণ্ডবিধি ৩০৭ দ্বারা সহ বিভিন্ন ধারায় মামলা করেন। তরুনী ও তরুনীর মায়ের উপর নিঃশংস অত্যাচার ও নির্যাতনের খবর পেয়ে সাংবাদিক বৃতি সুন্দর পরিবারটির পাশে এসে দাড়ান এবং রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়কে পুলিশের নির্মাম নির্যাতনের কথা লিখিতভাবে জানাতে সাহায্য করেন।
রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী অভিযোগ পেয়ে সমস্ত ঘটনা নিরপেক্ষ তদন্তের নির্দেশ দিলে ঘোলা থানার ওসি নিজকে বাঁচাতে পানিহাটির এক প্রভাবশালী নেতার দারস্থ হন। ধৃতরাষ্ট্র অভিযোগ করেন ওসি এবং ২৭ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আশিস দেবরায় ষড়যন্ত্র করে সাংবাদিক বৃতি সুন্দর রায়কে পানিহাটির বিধায়ক পিয়াদের বাড়িতে আসবেন বলে খবর সংগ্রহের জন্য আসতে বলেন। সাংবাদিক বৃতি সুন্দর পিয়াদের বাড়িতে গিয়ে দেখে যে, বিধায়ক নয় সেখানে উপস্থিত পানিহাটি তৃণমূল সভাপতি সম্রাট চক্রবর্তী।
এক পর্যায়ে আশিস দেবরায় সাংবাদিক বৃতি সুন্দরের উপর ঝাপিয়ে পড়েন এবং তাকে মারধর করেন পরে তারা ঘোলা থানার পুলিশকে ফোন করে সাংবাদিক বৃতি সুন্দর রায় এবং পিয়ার বাবাকে ভ্যানে তুলে নিয়ে যায়। পরে ওসি পিয়ার বাবাকে তৃণমূল পার্টি অফিসে ছেড়ে দেয় এবং নানা ধরনের হুমকি, ধমকি প্রদান করে পিয়ার বাবাকে সাদা কাগজে স্বসাক্ষর নিয়ে ছেড়ে দেয়। সাক্ষর করা সাদা কাগজে পুলিশ ইচ্ছেমতো অভিযোগ লেখে পিয়ার বাবাকে মামলার বাদী বানিয়ে সাংবাদিক বৃতি সুন্দরকে মিথ্যা মামলায় ফাঁসিয়ে দেন।
আদর্শ তিতুমীর পত্রিকার সম্পাদক রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী পুলিশের ডিজি সহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে সাংবাদিককে মিথ্যা মামলায় ফাঁসানোর ঘটনার বিচার দাবী করেছেন।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close