আন্তর্জাতিক

পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্সে বাংলাদেশী কমিউনিটির নেতৃবৃন্দ, আয়ারল্যান্ডে বাংলাদেশ দূতাবাস স্থাপনের সিদ্ধান্ত গ্রহণে প্রধানমন্ত্রীর প্রতি কৃতজ্ঞতা

ডেস্ক রিপোর্ট : গত বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ ৩-৫০ মিনিটে আয়ারল্যান্ডের রাজধানী ডাবলিনে অনলাইন ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে আয়ারল্যান্ডে বাংলাদেশী দূতাবাস প্রতিষ্ঠার সিদ্ধান্তের জন্য বাংলাদেশ পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জ্ঞাপন মূলক এক সভা অনুষ্ঠিত হয়। মাননীয় হাইকমিশনার গতবছর ১৯ শে নম্বেবর ডাবলিনে আসেন আয়ারল্যান্ডের রাষ্ট্রীয় সফরে, উনি আয়ারল্যান্ডের প্রেসিডেন্ট মিস্টার ড: হিগিন্স এর সাথে দেখা করেন এবং শীর্ষস্থানীয় পররাষ্ট্র এবং বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদের সাথে সৌজন্যমুলক সাক্ষাত করেন যা বাংলাদেশ এবং আয়ারল্যান্ডের দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক উন্নয়নের বিরাট ভুমিকা রাখছে। উল্লেখ যে গতকালের ভিডিও কনফারেন্সে আমাদের সম্মানিত মাননীয় পররাষ্ট্র মন্ত্রী মহোদয় উনার বক্তৃতায় প্রবাসী বাংলাদেশীদের প্রতি অত্যন্ত আন্তরিকতা এবং কার্যকর ভূমিকা প্রদানের অঙ্গীকার করেন। তার প্রতিক্রিয়ায় আইরিশ বাংলাদেশী কমিউনিটির সকল সদস্যরা উৎফুল্ল হন। পরিবর্তী সময়ে মন্ত্রী মহোদয় আয়ারল্যান্ড সফর করার প্রত্যয়ও ব্যক্ত করেছেন। ভিডিও কনফারেন্স উপস্থিত ছিলেন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের সম্মানিত পররাষ্ট্র মন্ত্রী ড: এ,কে আব্দুল মোমেন, বাংলাদেশের ব্রিটিশ হাই-কমিশনার তাসনিম মুন ও বাংলাদেশের জার্মান অনারারি কনসুলেট ইঞ্জিনিয়াার হাসনাত মিয়া। হাসনাত মিয়া বলেন, কিছুদিন আগে সিরাজগঞ্জ-২ আসনের সাংসদ ও সাবেক আয়ারল্যান্ড প্রবাসী হাবিবে মিল্লাত মুন্না আয়ারল্যান্ডের জন্য এই সুখবর নিয়ে আসেন এবং আয়ারল্যান্ডে এই হাইকমিশন স্থাপন যথার্থই প্রবাসী বাঙালিদের জন্য অনেক সুফল বয়ে আনবে। ব্রিটিশ বাংলাদেশ হাইকমিশনার তাসনিম মুন ওনার বক্তব্যে সুবিন্যস্তভাবে আয়ারল্যান্ডে বাংলাদেশী দুতাবাস প্রতিষ্ঠার ব্যাপারে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলো তুলে ধরেন। তিনি বলেন যে আয়ারল্যান্ডে বাংলাদেশ দূতাবাস প্রতিষ্ঠিত হলে অপার সম্ভবনা রয়েছে দ্বিপাক্ষি বাণিজ্য সমূহের। এতে বাংলাদেশে থেকে আয়ারল্যান্ডে আসাটা যেমন সহজতর হবে তেমনি আয়ারল্যান্ডে বসবাসকারী বাংলাদেশীদেরও সহজতর হবে সরকারী বিভিন্ন কাজে। দেশে প্রায় ছয় লক্ষাধিক ফ্রিল্যান্স তথ্যপ্রযুক্তি জ্ঞান সম্পন্ন জনবল রয়েছে যার সুযোগ কাজে লাগানো যেতে পারে। উক্ত সভার শেষে বক্তব্য রাখেন মাননীয় পররাষ্ট্রমন্ত্রী যিনি দৃঢ় আশা ব্যক্ত করেন ডাবলিনে বাংলাদেশী দুতাবাস প্রতিষ্ঠায়। তিনি উল্লেখ্য করেন যে বাংলাদেশের এখন পর্যন্ত বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ৭৭টি দুতাবাস রয়েছে এবং জননেত্রী শেখ হাসিনার সরকার ক্ষমতায় থাকা অবস্থায় আওয়াম লীগ সরকারের লক্ষ্যমাত্রা ১০০-তে উন্নীত করা। তিনি প্রবাসীদের কল্যাণের জন্য আওয়ামী লীগ সরকারের নেওয়া বিভিন্ন প্রকল্প ও উদ্যোগের কথা তুলে ধরে জননেত্রী শেখ হাসিন কে ধন্যবাদ জানান এবং আয়ারল্যান্ডবাসীকে অভিনন্দন জানান। ঐতিহাসিক এবং ও তাৎপর্যময় এই সভায় উপস্থিত ছিলেনÑ ডাবলিন থেকে মো: ফিরোজ হোসেন সফ্টওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার এবং সভাপতি ডাবলিন আওয়ামী লীগ। বাবু অলক সরকার, সফ্টওয়্যার ডাটা এনালিস্ট, সাধারণ সম্পাদক ডাবলিন আওয়ামী লীগ। এম.এইচ. মুন্না সৈকত (সি.এ.), ফিনান্সিয়াল এনালিস্ট, প্রবাস ও আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক, ডাবলিন আওয়ামী লীগ। ডা: জিন্নুর জায়দিরগার, কনসালন্টেট ডাবলিন কনোলী হাসপাতাল। রিয়াজ খন্দকার, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক, ডাবলিন আওয়ামী লীগ। জসীম উদ্দিন, সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় এবং প্রতিষ্ঠাতা সাংগঠনিক সম্পাদক, আয়ারল্যান্ড আওয়ামী লীগ। মো: মোস্তফা, কমিউনিটি ব্যক্তিত্ব। শাহাদাৎ হোসেন, কমিউনিটি ব্যক্তিত্ব। তারেক সালাউদ্দিন, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী এবং কমিউনিটি নেতা। জনাব কাজী কবীর, আয়ারল্যান্ড বাংলাদেশী কমিউনিটির অন্যতম প্রতষ্ঠাতা। শ্রী সমীর কুমার ধর, গবেষক এবং সাংগঠনিক সম্পাদক, ডাবলিন আওয়ামী লীগ। হাফিজুর রহমান লিঙ্কন, কমিউনিটি ব্যক্তিত্ব এবং সহ-সভাপতি, ডাবলিন আওয়ামী লীগ। দিলদার হোসেন, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী এবং সাংগঠনিক সম্পাদক, ডাবলিন আওয়ামী লীগ। মো: সাইফুর রহমান বাবলু, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী এবং সহ-সভাপতি, ডাবলিন আওয়ামী লীগ। নাসির আহমেদ, সফ্টওয়্যার ডেভলোপার এবং তথ্য প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক, ডাবলিন আওয়ামী লীগ। নজরুল ইসলাম মানিক ব্যবসায়ী এবং সদস্য, ডাবলিন আওয়ামী লীগ। কাউন্টি কর্ক থেকে উপস্থিত ছিলেন; রফিক খান প্রতিষ্ঠাতা সাংগঠনিক সম্পাদক আয়ারল্যান্ড আওয়ামী লীগ। ফয়জুল্লাহ শিকদার, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী। সানোয়ার হোসেন, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী। মো: নোমান চৌধুরী, ছাত্র এবং সভাপতি, আয়ারল্যান্ড ছাত্রলীগ। কাউন্টি কেরী থেকে উপস্থিত ছিলেনÑ কিবরিয়া হায়দার- বিশিষ্ট ব্যবসায়ী এবং প্রাপ্তন সভাপতি আয়ারল্যান্ড আওয়ামী লীগ। কামরুজ্জামান নান্না, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও সাবেক সহ-সভাপতি, আয়ারল্যান্ড আওয়ামী লীগ। কাউন্টি কিলকেনী থেকে উপস্থিত ছিলেনÑ সৈয়দ মুস্তাফিজুর রহমান- কমিউনিটি ব্যক্তিত্ব। কাউন্টি ওফেলী থেকে উপস্থিত ছিলেন: জনাব মনিরুজ্জামান শুভ্র, প্রাইভেট সার্ভিস সেক্টর, সাধারণ সম্পাদক, ওফেলি আওয়ামী লীগ। তাম্মান্না ফারিয়া, ছাত্রী, দপ্তর বিষয়ক সম্পাদক, ওফেলি আওয়ামী লীগ। অনলাইন সভাটি উপস্থাপন এবং নিয়ন্ত্রণের ভুমিকায় ছিলেন এম.এইচ. মুন্না সৈকত, ফিরোজ হোসেন এবং বাবু অলক সরকার। উক্ত অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন আয়ারল্যান্ডের সুপরিচিত বাংলাদেশ কমিউনিটির গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close