নোয়াখালীনোয়াখালীর খবরবিশেষ সংবাদ

করোনার বিরুদ্ধে ২৭ দিন যুদ্ধ শেষে বাসায় ফিরলেন ভোক্তার শাহরিয়ার

 

প্রতিবেদক ;

ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক (উপসচিব), নোয়াখালীর সন্তান  মনজুর মোহাম্মদ শাহরিয়ারের করোনা পজেটিভ ধরা পড়ে গত ১৩ মে। তারপর শরীরের ওপর দিয়ে রীতিমতো ঝড় গেছে শাহরিয়ারের। ফুসফুসে সংক্রমণ ধরা পড়েছে। ব্যাক পেইন তীব্র হয়েছে। স্কয়ার হাসপাতাল, সম্মিলিত সামরিক হাসপাতাল (সিএমএইচ), ল্যাবএইড, আনোয়ার খান মর্ডান হাসপাতাল ঘুরে এবং সবশেষ বাংলাদেশ স্পেশালাইজড হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়ে ২৭ দিন করোনার বিরুদ্ধে যুদ্ধ শেষে সুস্থ হয়ে বাসায় ফিরেছেন প্রশাসন ক্যাডারের ২২তম ব্যাচের এই কর্মকর্তা। শারীরিক অবস্থার বেশ উন্নতি হওয়ায় তাকে বাসায় নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

কালের কণ্ঠের এই প্রতিবেদককে জানিয়েছেন, ফুসফুসের সংক্রমণ এবং ব্যাক পেইনের জন্য চিকিৎসক দুই সপ্তাহের বিশ্রামে থাকতে বলেছেন। খুশির খবর জানিয়েছেন স্ত্রী এক ছেলে ও এক মেয়ের যে করোনা পজেটিভ ধরা পড়েছিল, আজ মঙ্গলবার জানানো হয়েছে, সবার করোনা নেগেটিভ এসেছে। স্ত্রী তানজিনা সুলতানা, মেয়ে তাইফা নূহা আশী (১২) ও ছেলে তানজিন শাহরিয়ার আরিফের (১০) শরীরে করোনা নেই।

মনজুর মোহাম্মদ শাহরিয়ার দেশবাসীর কাছে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে বলেন, সবার দোয়ায় আমি সুস্থ হয়েছি। বণিজ্যমন্ত্রী ও বাণিজ্য সচিব সার্বক্ষণিক খবর নিয়েছেন। তাদের প্রতিও কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন। গত ১৩ মে প্রথম করোনা পজেটিভ ধরা পড়ার পর তিন দফায় পরীক্ষা করে প্রতিবারই করোনা পজেটিভ ধরা পড়ে মনজুর শাহরিয়ারের। ২৬ মে দ্বিতীয় দফা রাজধানীর সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) কোভিড-১৯ পরীক্ষা করানো হলে সেখানেও পজিটিভ আসে।

গত ২৮ মে অবস্থার অবনতি হলে প্রথম নেওয়া হয় ল্যাবএইড হাসপাতালে। কিন্তু সেখানে ভর্তি করানো হয়নি। পরে নেওয়া হয় আনোয়ার খান মর্ডান হাসপাতালে। কিন্তু সেখানেও ভর্তি করতে অপারগতা প্রকাশ করা হয়। সবশেষ বাংলাদেশ স্পেশালাইজড হাসপাতালে ভর্তি করা হয় একই দিন ২৮ মে। ৩ জুন করোনা নেগেটিভ আসে তাঁর। অবশেষে হাসপাতাল থেকে ছাড়া পেয়ে গতকাল বাসায় ফিরেন তিনি।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close