আন্তর্জাতিকওপার বাংলা

সুস্থ আছেন কলকাতা ঢাকা মৈত্রী পরিষদ নেতা পশ্চিম মেদিনীপুরের ইয়াসিন পাঠান

 
নিজস্ব প্রতিনিধি কলকাতা থেকে ;
ভাল আছেন পাথরা পুরাতত্ব ও মন্দির সংরক্ষণ কমিটির প্রাণ পুরুষ ইয়াসিন পাঠান। তিনি চিকিৎসায় সাড়া দিচ্ছেন বলে জানিয়েছেন,তাঁর পুত্র তদবির পাঠান। সোমবার বেলা সাড়ে ১১টা নাগাদ হঠাৎ স্ট্রোকে আক্রান্ত হন কবির পুরষ্কার প্রাপ্ত ইয়াসিন। সাথে সাথেই তাঁকে তাঁর হাতিহলকারের বাস ভবন থেকে পরিবারের লোকেরা নিয়ে আসেন মেদিনীপুর শহরের একটি বেসরকারি হাসপাতালে। সেখানে প্রাথমিক চিকিৎসার পর চিকিৎসকদের পরামর্শে তাঁকে নিয়ে আসা হয়েছে কলকাতা মেডিকেল কলেজে। বর্তমানে সেখানেই চিকিৎসা চলছে তাঁর। অভিজ্ঞ একদল চিকিৎসক মন্ডলীর তত্ত্বাবধানে চিকিৎসা শুরু হওয়ার পর বর্তমানে অনেকটাই সুস্থ হয়ে উঠেছেন, বলে তাঁর পরিবার সূত্রে জানানো হয়েছেন। মঙ্গলবার সকালে ইয়াসিন পাঠান সামান্য কথা বলেছেন পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে। চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, প্রাথমিক সঙ্কট কেটে গেছে তবে পরিপূর্ণ সেরে উঠতে সময় লাগবে বেশ কিছুটা। আপাতত চিকিৎসকদের পর্যবেক্ষনেই রাখা হয়েছে তাকে।এদিকে ইয়াসিনের অসুস্থ হওয়ার খবর ছড়িয়ে পড়তেই উদ্বেগে রয়েছে তাঁর অগনিত গুণমুগ্ধ মানুষ। দীর্ঘ প্রায় ৫ দশক ধরে পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার কোতোয়ালি থানার অন্তর্গত পাথরা গ্রামে মাত্র ১৭ বছর বয়সে ক্ষয়িষ্ণু ৩৪টি হিন্দু দেবালয় রক্ষার লড়াই শুরু করেন ইয়াসিন।১৯৭১ থেকে ১৯৯৫ দীর্ঘ লড়াই করে,শেষ অবধি সফলতার মুখ দেখতে শুরু করেন। ততদিনে ৬টি দেবালয় ধ্বংস হয়ে যায়। ২০০৩ সালে ভারতীয় পুরাতত্ত্ব সংরক্ষণ সংস্থা ASI মন্দির গুলির দায়িত্ব নেয় এবং সংরক্ষনের কাজ শুরু হয়। বর্তমানে সেই কাজ প্রায় সম্পূর্ণ হওয়ার পথে। তাঁর এই অসামান্য অবদানের জন্য তিনি ভারত সরকারের কবীর পুরষ্কারে সম্মানিত হন। যদিও এই সংরক্ষনের কাজের জন্য যে ২৫ বিঘা জমি অধিগ্রহণ করে সরকার সেই জমির মালিকদের ক্ষতিপূরণ দেওয়ার কাজটি আজও অসম্পূর্ণ বলে দাবি করে, দ্বিতীয় দফার লড়াই শুরু করেছিলেন স্থানীয় চুয়াডাঙ্গা স্কুলের অবসর প্রাপ্ত এই করনিক।নানা জটিল রোগে আক্রান্ত ভগ্ন স্বাস্থ্যের অধিকারি এই মানুষটির অদম্য লড়াই তাঁকে সারা দেশে পরিচিতি এনে দিয়েছে তাকে। সাম্প্রদায়িক সংহতির অনন্য নজির হিসাবে আর সেকারনেই তাঁর এই হঠাৎ অসুস্থতায় তীব্র উদ্বেগ সৃষ্টি করেছিল তাঁর প্রিয়জন থেকে বিশিষ্ট জনেদের মধ্যে। তাঁর সুস্থতার বার্তা অবশেষে স্বস্তি এনে দিয়েছে সকল মহলে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close