নোয়াখালীনোয়াখালীর খবর

চাটখিলে সাংবাদিক পরিচয়ে ব্রিটিশ নাগরিকের কাছে চাঁদাদাবি, আদালতে মামলা

চাটখিল (নোয়াখালী) সংবাদদাতা:
আজকের পত্রিকা ও এশিয়ান টিভির ক্রাইম রির্পোটার পরিচয় দিয়ে চাটখিলের চিহ্নিত শিবির ক্যাডার সাইফুল ইসলাম রিয়াদ বাংলাদেশী ব্রিটিশ নাগরিক মো: শাহ সুফিয়ানের কাছে ৫০ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করে। চাঁদা না দিলে ঐ ব্রিটিশ নাগরিকের নামে আজকের পত্রিকা ও এশিয়ান টিভিতে নিউজ প্রকাশ করে হেনস্তা করবে বলে হুমকি দেয়। এই ঘটনায় শাহ সুফিয়ান নামের ঐ ব্রিটিশ নাগরিক নোয়াখালী (আমলী আদালত – ৭) মামলা করেছেন।

আদালতে দায়ের করা মামলার বিবরনে জানা যায়, চাটখিল পৌরসভার ২নং ওয়ার্ড সুন্দরপুর গ্রামের বড় বাড়ির শাহ আলমের ছেলে সাইফুল ইসলাম রিয়াদ (৩৫) গত ২ জুন সকাল ১১ টায় অজ্ঞাতনামা ৪ যুবকসহ ঐ ব্রিটিশ নাগরিকের চাটখিলের ভীমপুরস্ত বাড়িতে ভবনের সংস্কার কাজ করার ভিডিও ফুটেজ নিজের মোবাইল ফোনে ধারন করে এবং রাত ৮টায় চাটখিল আজিজ সুপার মার্কেটে রিয়াদের সাথে দেখা করতে বলে। এসময় রিয়াদ হুমকি দিয়ে বলে দেখা না করলে শাহ সুফিয়ানের বিরাট ক্ষতি হবে। ফলে রাত ৮:৪০মিনিটে শাহ সুফিয়ান তার এক বন্ধুকে সাথে নিয়ে রিয়াদের সাথে দেখা করতে গেলে রিয়াদ শাহ সুফিয়ানকে বলে আমাদেরকে ৫০ হাজার টাকা চাঁদা দিতে হবে নয়ত আমরা ধারনকরা ভিডিও ফুটেজ এশিয়ান টিভিতে প্রচার করব আপনি অন্যের জায়গায় জোরপূর্বক ভবন করছেন বলে এবং আজকের পত্রিকাতেও নিউজ প্রকাশ করা হবে। ব্রিটিশ ঐ নাগরিক রিয়াদকে জানান, তিনি আদালতের আদেশ প্রাপ্ত হইয়া ভবন সংস্কার করতেছে। রিয়াদ পাল্টা জবাবে বলে, আদালতের আদেশ দেখাই কোন লাভ হবে না টাকা নিয়ে আসেন নয়ত নিউজ করে দিবো।

এই ঘটনার পর শাহ সুফিয়ান বাড়িতে চলে আসেন এরপর থেকে রিয়াদ শাহ সুফিয়ানের মুঠোফোনে একাধিকবার কল দিয়ে বিভিন্ন সময় চাঁদা দেওয়ার জন্য চাপ সৃষ্টি করে। শাহ সুফিয়ানের কাছে কথোপকথন রেকর্ডিং রয়েছে বলে মামলার বিবরনে জানা গেছে। মামলার অভিযোগে তিনি আরো উল্লেখ করেন, তিনি এলাকায় খোঁজ খবর নিয়ে জানতে পেরেছেন সে একজন ঠক, প্রতারক ও চাঁদাবাজ। তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন অভিযোগে কয়েকটি মামলা রয়েছে।

ন্থানীয় থানা ও আদালত সূত্রে জানা যায়, তার বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে ২টি, চেক জালিয়াতির ১টি, পুঙ্গ রিকসা চালকের নামে টাকা তুলে আত্মসাৎ ১টি সহ ৫টি মামলা রয়েছে।

চাটখিল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আনোয়ারুল ইসলাম জানান, ২০১৮ সালে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা হলে তাকে পুলিশ গ্রেফতার করে আদালতে সোপর্দ করলে সে ১মাস ৭দিন হাজতে থেকে জামিনে বের হয়ে আসে। ঐ মামলাটি বর্তমানে বিচারাধীন রয়েছে। উল্লেখ্য প্রধানমন্ত্রী সহ দেশের বিশিষ্ট লোকজনের বিরুদ্ধে সে একাধিক ফেসবুক ফ্যাক আইডি ব্যবহার করে অপপ্রচার চালায় এবং সরকারের বিরুদ্ধে উস্কানিমূলক বক্তব্য দিয়ে প্রচার চালায়। স্থানীয় একজন ব্যবসায়ী তার এই অপপ্রচারের শিকার হয়ে তার বিরুদ্ধে চাটখিল থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা করেন যাহা চাটখিল থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের প্রথম মামলা।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close